ধর্ম নিয়ে উক্তি, ধর্মীয় বাণী, ধর্ম নিয়ে ৮০ টি উক্তি

ধর্ম নিয়ে উক্তি, ধর্মীয় বাণী, ধর্ম নিয়ে বাণী
১. মিথ্যা শুনিনি ভাই এই হৃদয়ের চেয়ে বড় কোনও মন্দির-কাবা নাই।
-কাজী নজরুল ইসলাম
২. যে ধর্মের নামে বিদ্বেষ সঞ্চিত করে, ঈশ্বরের অর্ঘ্য হতে সে হয় বঞ্চিত।
-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
৩. ধর্ম হলো মানব জীবনের জন্য একটি চিরন্তন সংবিধান, যা মানুষের ইহকাল ও পরকালের কল্যানের জন্য সৃষ্ট।
-রেদোয়ান মাসুদ
৪. মানুষের সেবা করা হচ্ছে ঈশ্বরের সেবা করা।
-স্বামী বিবেকানন্দ
৫. আমার উদ্বেগ ঈশ্বর আমাদের পক্ষে আছে কি না; আমার সবচেয়ে বড় উদ্বেগ হল ঈশ্বরের পক্ষে থাকা, কারণ ঈশ্বর সর্বদা সঠিক।
– আব্রাহাম লিঙ্কন
৬. ধার্মিকতা আর ধর্মান্ধতা এক জিনিস নয়। ধার্মিকতা মানুষকে আলোর পথে নিয়ে যায় আর ধর্মান্ধতা মানুষকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দেয়। এ দেশের মানুষকে আমি ধার্মিক বলব না কারণ এ দেশের বেশিরভাগ মানুষই ধর্মান্ধ।
– রেদোয়ান মাসুদ
৭. মন ধর্মের পূর্বগামী, মনই শ্রেষ্ঠ, সকলই মনোময়।
-গৌতম বুদ্ধ
৮. ধর্ম যারা সম্পূর্ণ উপলব্ধি না করিয়া প্রচার করিতে চেষ্টা করে তহারা ক্রমশই ধর্মকে জীবন হইতে দূরে ঠেলিয়া থাকে। ইহারা ধর্মকে বিশেষ গন্ডি আঁকিয়া একটা বিশেষ সীমানার মধ্যে আবদ্ধ করে।
-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
৯. যে ধর্মের নামে বিদ্বেষ সঞ্চিত করে, ঈশ্বরের অর্ঘ্য হতে সে হয় বঞ্চিত।
-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
১০. মানুষ বুঝতে পারে না কিভাবে একটা বই দিয়ে একজন মানুষের পুরো জীবন বদলে যায়।
– ম্যালকম এক্স
১১. মানুষের ভেতরে যে দেবত্ব আছে, তারই প্রকাশ সাধনকে বলে ধর্ম।
-স্বামী বিবেকানন্দ
১২. মানবতাই মানুষের একমাত্র ধর্ম হওয়া উচিত।
-বার্নার্ড রাসেল
১৩. ধর্মের মাঝে থেকে মানুষ এত দুষ্ট ও বদমাইশ হয়েছে, ধর্মের আবরণে যদি মানুষ না থাকতো তাহলে তারা কত দুষ্ট ও বদমাইশ হতো।
-ফ্রাঙ্কলিন
১৪. ধর্ম যেখানে রাজনীতির হাতিয়ার হয়ে দাঁড়ায় শান্তি সেখান থেকে দৌড়ে পালায়।
– রেদোয়ান মাসুদ
১৫. সব ধৰ্মই ভালোকারণ সব ধর্মই মানুষের কল্যাণের কথা বলে।
-টমাস পেইন
১৬. ধর্মে, সত্যের, যাহা ভালো তাহার চিরকালই জয় হয়।
-অশ্বিনীকুমার
১৭. মন ধর্মের পূর্বগামী, মনই শ্রেষ্ঠ, সকলই মনোময়।
-গৌতম বুদ্ধ
১৮. ধর্ম শোষকদের শ্রেষ্ঠ হাতিয়ার।
– লেলিন
১৯. হিন্দু না ওরা মুসলিম এই জিজ্ঞাসে কোন জন হে, কাণ্ডারি বল ডুবিছে মানুষ সন্তান মোর মা’র ।
-কাজী নজরুল ইসলাম
২০. সন্ত্রাসবাদ কখনোই কোনো ধর্মে অধিকার নয়। আর ইসলাম সব সময় সাধারণ মানুষ হত্যা কে ঘৃনা করে তাই কেউ চাইলেই এসব হত্যাকান্ডকে ইসলামাইজ করতে পারেনা।
-ড.জাকির নায়িক
২১. ধর্ম মানুষের প্রয়োজনেই সৃষ্ট, তাই ধর্ম মানুষের মঙ্গলের কথাই বলে।
-স্টেপ হেন
২২. যারা ধর্ম বিশ্বাসী তারাই যুবক এবং যাৱা অবিশ্বাসী তারাই বৃদ্ধ।
-চ্যানি
২৩. অনেকে চারটি বেদ এবং ধর্মশাস্ত্র অধ্যয়ন করলেও আত্মাকে জানে না, হাতা যেমন রন্ধন-রস জানে না ।
-চাণক্য
২৪. ধর্ম অৰ্থ, ঈশ্বরের প্রতি ও মানুষের প্রতি ভালোবাসা ব্যতীত কিছুই বুঝায় না।
-উইলিয়াম পেন
২৫. নামাজ পড়, রোজা রাখ, কলমা পড় ভাই, তোর আখেরের কাজ করে নে সময় যে আর নাই।
-কাজী নজরুল ইসলাম
২৬. সেই ধর্মই যথাৰ্থ যাতে সব মানুষের কল্যাণ নিহিত।
-হান্না মুরু
২৭. ভয়ের তাড়া খেলেই ধর্মের মূঢ়তার পিছনে মানুষ লুকাতে চেষ্টা করে।
-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
২৮. সৎ লোক সাতবার বিপদে পড়লে আবার উঠে কিন্তু অসৎ লোক বিপদে পড়লে একবারে নৃপাত হয়।
– হযরত সুলায়মান আঃ
২৯. ধর্ম যেখানে রাজনীতির হাতিয়ার হয়ে দাঁড়ায় শান্তি সেখান থেকে দৌড়ে পালায়।
– রেদোয়ান মাসুদ

৩০. যেখানেই হোক না কেন আমাদের মধ্যে যে কাউকে গর্ভধারণ করা হোক না কেন, এটি একই। আমরা ঈশ্বরের বাহুতে অস্তিত্বে এসেছি।
– রবার্ট ফুলঘাম
৩১. কর্তব্য সম্পাদনই ধর্ম।
-ম্যাক্স মুলার
৩২. এমন কারো সঙ্গী হন যে আপনাকে আল্লাহর কথা স্মরণ করিয়ে দেয়।
-ড.বিলাল ফিলিপস
৩৩.সংস্কৃতি বেশিরভাগ সময়ই ধর্মকে এড়িয়ে চলে।
– রেদোয়ান মাসুদ
৩৪. ভুল বুঝাবুঝি এবং বিচ্ছিন্নতা মানবজীবনের সাধারণ ধর্ম।
-ক্যাথারিন এনাপোটোর
৩৫. দুনিয়ার জীবন সংক্ষিপ্ত, তাই আল্লাহর দিকে ফিরে যাওয়ার আগে আল্লাহর দিকে ফিরে আসেও।
– বেনামী
৩৬. ধর্ম উপলব্ধির বিষয় তর্কের নয়।
-শ্যামলচন্দ্র দত্ত
৩৭. আমি আল্লাহকে সবচেয়ে বেশি ভয় পাই।তারপর সেই মানুষকে ভয় পাই যে আল্লাহকে মোটেই ভয় পায়না।
– শেখ সাদী
৩৮. যিনি অস্থিরচিত্ত, যিনি সত্যধর্ম অবগত নন, যার মানসিক প্রসন্নতা নেই, তিনি কখনো প্রাজ্ঞ হতে পারেন না
-গৌতম বুদ্ধ
৩৯. ধর্ম হচ্ছে সমস্ত মানুষের কল্যাণ সাধন করা।
-টমাস পেইনি
৪০. যে নিজের মর্যাদা বোঝে না অন্যেও তার মর্যাদা দেয় না! ”
– হযরত আলী (রাঃ)
৪১. প্রতিদিন আমাদের মনে যু’দ্ধ হয়। যখন আমরা অনুভব করতে শুরু করি যে যু’দ্ধ’টি খুব কঠিন এবং হাল ছেড়ে দিতে চাই, তখন আমাদের অবশ্যই নেতিবাচক চিন্তাভাবনা প্রতিরোধ করতে হবে এবং আমাদের সমস্যার ঊর্ধ্বে উঠতে দৃঢ়সংকল্পবদ্ধ হতে হবে। আমাদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে যে আমরা ছাড়ব না। আমরা যখন সন্দেহ ও ভয়ে ভুগতে থাকি, তখন আমাদের অবশ্যই অবস্থান নিতে হবে এবং বলতে হবে: ‘আমি কখনই হাল ছাড়ব না! ঈশ্বর আমার পাশে। তিনি আমাকে ভালবাসেন, এবং তিনি আমাকে সাহায্য করছেন! আমি এটা করতে যাচ্ছি!
– জয়েস মায়ার
৪২. যিনি যত অধিক ভাষণ করুন না কেন তাতে তিনি ধর্মধর হতে পারেন না। যিনি অল্পমাত্র ধর্মকথা শুনে নিজের জীবনে তা আচরণ করেন এবং ধর্মে অপ্রমত্ত থাকেন তিনিই প্রকৃত ধর্মধর।
-গৌতম বুদ্ধ
৪৩. আমি দেখতে পাই যে, বিশ্বের সর্বত্র বিচক্ষণ ও বিবেক বুদ্ধিসম্পন্ন মানুষের ধর্ম ছিল একটাই, সত্যনিষ্ঠ জীবনযাপন এবং মোকাবিলা করার ধর্ম।
-রালফ ওয়ালডাইমারসন
৪৪. গত কুড়ি বৎসর ধরিয়া বেদ, উপনিষদ, পুরাণ ইত্যাদি সমস্ত হিন্দুশাস্ত্র এবং হিন্দু জ্যোতিষ ও অপরাপর বিজ্ঞান সম্বন্ধীয় প্রাচীন গ্রন্থাদি তন্ন তন্ন করিয়া খুঁজিয়া আমি কোথাও আবিষ্কার করিতে সক্ষম হই নাই যে, এই সমস্ত গ্রন্থে বর্তমান বিজ্ঞানের মূল তত্ত্ব নিহিত আছে।
-মেঘনাদ সাহা
৪৫. পৃথিবীতে ধর্মই একমাত্র বিষয় যার সমালোচনা সহ্য করার মতো সহিষ্ণুতা নেই।
-বার্নার্ডশ
৪৬. ধর্মের ব্যাপারে যারা অন্ধ, তারা কখনো স্বাধীনভাবে চিন্তা করতে পারে না।

-বার্নার্ড রাসেল
৪৭. যখনই আপনি ‘ইসলামী সন্ত্রাসবাদ’ কথাটি ব্যবহার করতে শুরু করেন তখনই সারাবিশ্ব সরে দাঁড়ায়, কেউ মানবাধিকার নিয়ে কথা বলে না, আপনি যা খুশি তাই করতে পারেন।
-ইমরান খান
৪৮. ধর্ম মানুষের কাছে অহিফেন তুল্য।
-কার্ল মার্কস
৪৯.এটি ধর্ম আরেকটি ধর্মের মতোই সত্য।
-রবার্ট বার্টন
৫০. সাংসারিক কর্তব্য পালনে প্রকৃতপক্ষে ধর্ম কার্য। দুনিয়া চোখের সামনেই তো পড়ে রয়েছে কেতাবের যে দুনিয়াতে মানুষের শিখবার আছে বেশি।
-আলমগীর
৫১. বৃহত্তর কাজের জন্য প্রার্থনা আমাদের উপযুক্ত নয়; নামায সবচেয়ে বড় কাজ।
– অসওয়াল্ড চেম্বার্স
৫২. সমাজে দুর্নীতি বেড়ে গেলে ধর্মচর্চা বেড়ে যায়।
হুমায়ুন আজাদ
৫৩. ধর্মের ব্যাপারে যারা অন্ধ তারা কখনোই স্বাধীনভাবে চিন্তা করতে পারে না।
-বার্নার্ড রাসেল
৫৪. জীবে প্রেম করে যেইজন সেইজন সেবিছে ঈশ্বর।
-স্বামী বিবেকানন্দ
৫৫. ভয়ের তারা খেলে ধর্মের মুরতার তার পিছনে মানুষ লুকাতে চেষ্টা করে।
-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
৫৬. স্রষ্টা ধর্মহীন।
-মহাত্মা গান্ধী
৫৭. ধর্ম হচ্ছে জীবন, দর্শন হচ্ছে চিন্তন। ধর্ম নেত্রপাত করে উদ্ধে, সােহার্দ্য নেত্রপাত করে অন্তরে। চিন্তন ও জীবন উভয়ই আমাদের প্রয়োজন এবং আমাদের প্রয়োজন উভয়ের মধ্যে সুসমতা।
-জেমস ফ্রিমান ক্লার্ক
৫৮. যারা নিজেদের ধর্মের কথা তোমাকে শোনাতে চাইবে তারা অধিকাংশ ক্ষেত্রে তোমার ধর্মের কথা শুনতে চাইবে না।
-ডেভ বেরি
৫৯. বুদ্ধিমানেরা কোনো কিছু প্রথমে অন্তর দিয়ে অনুভব করে, তারপর সে সম্বন্ধে মন্তব্য করে। আর নির্বোধেরা প্রথমেই মন্তব্য করে বসে এবং পরে চিন্তা করে। ”
– হযরত আলী (রাঃ)
৬০. মানুষের অন্তরে যে দেবত্ব আছে, তারই প্রকাশ সাধনকে ধর্ম বলে।
– স্বামী বিবেকানন্দ
৬১. অন্য বাঁচায় নিজে থাকে ধর্ম বলে জানিস তাকে।
-শ্রীশ্রীঠাকুর অনুকূলচন্দ্র
৬২. ধর্ম যারা সম্পূর্ণ উপলব্ধি না করিয়া প্রচার করিতে চেষ্টা করে তহারা ক্রমশই ধর্মকে জীবন হইতে দূরে ঠেলিয়া থাকে। ইহারা ধর্মকে বিশেষ গন্ডি আঁকিয়া একটা বিশেষ সীমানার মধ্যে আবদ্ধ করে। ”
-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর
৬৩. ধর্ম নিয়ে যারা কোন্দল করে, ধর্মের মর্ম তারা জানে না।
-ডঃ মুঃ শহীদুল্লাহ
৬৪. মসজিদ ভাঙে ধার্মিকেরা,মন্দির ও ভাঙে ধার্মিকেরা তারপর ও তারা দাবী করে তারা ধার্মিক আর যারা ভাঙাভাঙি তে নেই তারা অধার্মিক বা নাস্তিক।
-হুমায়ূন আজাদ
৬৫. ধর্ম হল সুখের সন্ধানের একটি সাধারণ নাম।
– জেমস গ্যাস্টন
৬৬. মানুষের সেবা করা হচ্ছে ঈশ্বরের সেবা করা।
-স্বামী বিবেকানন্দ
৬৭. খেলিছ এ বিশ্ব লয়ে বিরাট শিশু আনমনে।/ প্রলয় সৃষ্টি তব পুতুল খেলা নিরজনে প্রভু নিরজনে।
-কাজী নজরুল ইসলাম
৬৮. চিত্তকে মিথ্যার বিরুদ্ধে স্বাধীন করে রাখাই ধর্ম।
-ডাঃ লুৎফর রহমান
৬৯. মানবতা আমার ধর্ম, আর ভালবাসা আমার জাত।
– কৈলাশ সত্যার্থী
৭০. সাংসারিক কর্তব্য পালনই প্রকৃতপক্ষে ধর্ম কার্য। দুনিয়া চোখের সামনেই তাে পড়ে রয়েছে। কেতাবের চেয়ে দুনিয়ার হইতে মানুষের শিখবার আছে বেশি।
-আলমগীর
৭১. জাতি এবং ধর্ম কখনই ব্যক্তিগত যোগ্যতা এবং কঠোর পরিশ্রমের বিকল্প হতে পারে না।” – রাজনাথ সিং
৭২. কোনও মানুষকে তার জাত বা ধর্ম দ্বারা বিচার না করে বরং তার কাজ এবং চরিত্র দ্বারা বিচার করা উচিৎ।
– লাল বাহাদুর শাস্ত্রী
৭৩. প্রভুর প্রার্থনা মধ্যে রয়েছে ধর্ম ও সুনীতির মোট সমষ্টি।
-ভিউক অফ ওয়েলিংটন
৭৪. মনুষ্যত্ব ধর্মহীন জীবনে আসে না। তাই পৃথিবীতে সুখ ও শান্তির উদ্দেশ্যেই প্রত্যেক মানুষকে ধর্ম জ্ঞান লাভ করতে হবে।
– আলাউদ্দিন আহমদ
৭৫. যারা ধর্মের বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা দেয়, তারা ধার্মিকও নয়, বিজ্ঞানীও নয়। শুরুতেই স্বর্গ থেকে যাকে বিতারিত করা হয়েছিলো, তারা তার বংশধর ।
-হুমায়ূন আজাদ
৭৬. জাতি ও ধর্ম উভয়ই জাতীয় ঐক্য ও অগ্রগতির অন্তরায়।” – কে কামরাজ
৭৭. এ জগতে তুমি মানুষকে যা কিছু দাও, জ্ঞান দান অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ দান আর নেই। পথিককে পথ দেখান, জ্ঞানান্ধকে জ্ঞান দান করাই শ্রেষ্ঠ ধর্ম।
-ডাঃ লুৎফর রহমান”
৭৮. মসজিদ ভাঙলে আল্লার কিছু যায় আসে না, মন্দির ভাঙলে ভগবানের কিছু যায় আসে না; যায় আসে শুধু ধর্মান্ধদের। ওরাই মসজিদ ভাঙে, মন্দির ভাঙে।
-হুমায়ূন আজাদ
৭৯. হিন্দুরা মূর্তিপূজারী; মুসলমানেরা ভাবমূর্তিপূজারী। মূর্তিপূজা নির্বুদ্ধিতা; আর ভাবমূর্তিপূজা ভয়াবহ।
-হুমায়ূন আজাদ
৮০. ভক্ত শব্দের অর্থ খাদ্য। প্রতিটি ভক্ত তার গুরুর খাদ্য। তাই ভক্তরা দিনদিন জীর্ণ থেকে জীর্ণতর হয়ে আবর্জনায় পরিণত হয়।
-হুমায়ূন আজাদ
৮১. ধর্মানুভূতির দ্বারাই মানুষের সহজাত প্রবৃত্তি সমূহ লাভ করে কোমলতা, মধুরতা, গভীরতা, ব্যাপকতা ও অন্তদৃষ্টি।
-অগস্ত কোমতে
৮২. কখনো কখনো মানুষ আপনাকে বয়কট করবে, দূরে সরিয়ে দিবে, তবে এগুলোকে পার্সোনালি নিয়ে ভেঙ্গে পড়বেন না। কারণ আল্লাহ সুবহানাহু তা’আলা হয়তো ওদের দিক থেকে দূরে সরিয়ে তাঁর নিজের দিকেই আপনাকে ডাকছেন।
– ড. বিলাল ফিলিপ্স
৮৩. ধর্ম একটাই, যদিও রয়েছে এর বহু রূপ।

– জর্জ বার্নার্ডশ